Posted in English, Ph. D. series

Piled higher and Deeper…Life as a grad student !!!

“How could you just forget your backpack in the auditorium and come home?” his wife murmured as he plugged the electric iron to the socket.

“I don’t know….listen, I’m getting late! Will talk to you in the evening.” Neil said as he quickly switched off the computer. Living in two different continents, separated by innumerable time zones, Skype was the only way they could make each other’s presence felt in their otherwise lonely and stressful lives.

He quickly ironed his shirt and rushed to the coffee machine just as the overheated toaster popped up two half burnt toasts.

“Brilliant!” he muttered under his breath as he took a bite of the nearly blackened toast. His phone beeped. He picked to it to find a message from an old friend back home.

“Off to lab now, will chat in the evening.” he texted as his eyes fell on the wall clock. It was past 8.30.

“Excellent, I’m late again!” he blurted out angrily. He had a meeting with his supervisor, Dr. Julia Andrews, sharp at 9 and a departmental seminar in the evening. He would have to fit in an experiment that was long overdue, somewhere in the middle. In the final year of his PhD tenure, he could hardly afford to delay his experiments. Taking it slow is not a privilege that grad students usually enjoy!

He felt anxiety rising up within him again. At times he felt like a glass of soda! No matter how hard he tried, the bubbles of anxiety couldn’t be suppressed.

He sipped his coffee and glanced out of the window. The first snowfall of the season! After 6 long years in Canada, the beauty of snow barely appealed to him anymore. “Graduate life does that you!” he thought to himself. Quickly he put on his winter jacket and boots, picked up his backpack which he had conveniently forgotten in the auditorium the previous day and had to pick up later in the evening (since when did he become so careless?), grabbed a medicated adhesive for his injured finger (a result of his carelessness in the kitchen again) and rushed out of the door. He had a long day and he was already late!

Half an hour later, a breathless Neil rushed into his lab.

 “Hey! Good Morning.” Afreen wished.

“Good Morning. Is Julia in her office?” he asked his labmate.

“Yeah, she came in at 8.” Afreen replied offhandedly. “By the way, she might not be in her best mood.” she added with a wink.

“Of course, that’s what I need now!” Neil thought to himself as he unzipped his jacket.

“What the…….What are you wearing?” Afreen’s abrupt cry made him look down. “Where is your shirt?” she squealed!

“Oh Dear God!” Neil blurted out as he quickly zipped up the jacket over his under-shirt. His head buzzed. How in the world did he forget to wear a shirt?

“Don’t you have a meeting and a seminar to attend today?” Afreen nearly choked on her words as she tried to contain her bubbling laughter.

“Hey guys! What’s up?” they heard Samantha’s voice from the door.

“First snow of the year….doesn’t it feel amazing?” Sam, as the senior technician was popularly known, was saying when she suddenly noticed Neil’s flushed face. “Now, now, Neil, I know you hate the winters….but don’t look so petrified. And please take that jacket off. They have turned up the heater! You are sweating!”

“Sam, actually…” he tried to clear his voice. “Actually, there is a problem.”

“He forgot to wear a shirt!” Afreen blurted out from behind. After few moments of silence, both ladies burst out laughing just as Virendra walked into the lab.

“Who forgot to wear a shirt?” Virendra asked, amused. A Research Assosiate, Virendra was almost an elder brother to Neil and he would make sure that he never missed any opportunity of pulling his legs. “Ahh, I see a great scientist in the making! He is beginning to show symptoms guys!”

“Can you guys please be serious? I have a meeting with Julia. Like right now!” Neil cried. If only our society had allowed boys to cry, he would have been in tears by now.

Incidents such as this rarely happen, let alone in a science lab! The trio tried their best to contain their mirth.

“I could give you a ride back home but you don’t have time!” Sam offered as she wiped off the moisture from her eyes. It had been a long time since she had laughed this hard.

 “Look, you cannot possibly spend the entire day in that heavy jacket. You can wear this spare University hoodie while you are in the meeting and the seminar.” Afreen said helpfully.

“And while in lab, this apron can protect your modesty.” Virendra chuckled. “Now go to your office and change into this!” Virendra smacked him on his head and headed off to his work table, smiling to himself.

“Thanks a lot” Neil murmured as he grabbed the hoodie and rushed to his office.

“Hi Neil” Kirsten and Jess looked up at him from their computers just as he entered his office.

God! How could he have forgotten that he shared his office with two women!

“Hi!” He mumbled and rushed back to his lab, leaving behind two stupefied faces staring after him, flabbergasted.

“Sam, Afreen, Could you please not look while I change into the sweat shirt” he pleaded, as he entered his lab again.

“As you wish, your highness” the women laughed out!

As fast as he could, without risking any further embarrassment, Neil changed into the sweatshirt and rushed with his laptop to Julia’s room.

“You are late!” were the first words that greeted him.

As he mumbled his apologies and wondered if Julia should be privy to the classified information of his peril, she noted “Isn’t it too hot inside for that sweatshirt?”

“Umm, No, I am fine…” he tried to sound convincing, wiping off the perspiration that now dotted his forehead.

A pair of amused eyes scanned him and finally said “Up to you….” before moving on with the meeting.

For the remaining part of the day, a sweat shirt and an apron tried their level best to save Neil’s honor while amused eyes and a film of perspiration followed him wherever he went!

Before leaving for home, as he was busy ticking off items from a mental checklist he had made just to make sure he didn’t forget anything further, he heard Virendra call out from the door “Don’t forget to wear your pants tomorrow, Neil! C’ya!”

 “Glad to have provided some amusement!” Neil smirked, picked his backpack and left the lab.

On his way back home, he made a Whatsapp call to his wife.

“You forgot your what?” she laughed out loud, pausing only to get the words out of her mouth. “God, aren’t you too young to have Alzheimer’s?” she exclaimed.

“Please… as it is I had a hard day. Can you at least not be a prick?” He retorted as he entered his building.

“Anyway, I’m back home. I will call you after………OH DEAR GOD! NOT AGAIN!” he cried, startled.

“What did you do now?” his wife asked, worried!

“I cannot find my apartment keys! I have to go back to lab. I just hope I left my them there…..”

236243-19

Advertisements
Posted in Bengali, short shory

অন্য পুজো

“মা, আজ অফিস থেকে ফিরতে দেরি হবে, আবিরের সাথে পুজো শপিংএ যাবো!”

ব্রেকফাস্ট খেতে খেতে কাজে ব্যস্ত সাবিত্রী দেবীকে জানালো তার একমাত্র মেয়ে তিস্তা।  সাবিত্রী দেবীর তখন নিজেরও অফিসে যাওয়ার তাড়া, তবুও হবু জামাইয়ের জন্যে কিছু টাকা এনে মেয়ের হাতে গুঁজে দিয়ে বললেন, “আবিরকে আমার হয়ে পুজোর জন্যে ভালো কিছু কিনে দিস এটা দিয়ে। ” তারপর ভয়ে ভয়ে যোগ করলেন, “এতে হবে তো রে?”

“আবিরের জন্যে তো ব্র্যান্ডেড ছাড়া কিনে লাভ নেই, ও  পরবে  না ! তুমি বরং আরেকটু দাও। “

মেয়ের হাতে আরো কিছু টাকা দিয়ে নিশ্চিন্ত হলেন সাবিত্রী দেবী। এত কাজের মধ্যে পুজো শপিংটা করার সময়ই হচ্ছিলো না। যাক তিস্তা আজ শপিং করতে গিয়ে ভালোই করছে !

ইতিমধ্যে কর্নফ্লেকসের বাটি খালি করে টেবিল থেকে উঠে পড়েছে তিস্তা। পুজোর আর মোটে দিন কুড়ি বাকি। খুব কড়া ডিয়েটিং করছে মেয়ে এবার। আবিরের বন্ধুদের সাথে এবার প্রথম রাত জেগে পুজো দেখার প্ল্যান হয়েছে, তারা যেন তাকে মোটা বলার কোনো সুযোগই না পায়ে, মনে মনে ভাবলো তিস্তা। এবছর প্রথম আবিরের সাথে ঠাকুর দেখবে, সে চায় এবাবের পুজোটা হোক অন্য সববারের থেকে আলাদা, অন্য সববারের থেকে সেরা। 

দুপুরের স্যালাডটা ব্যাগে ভরে বেরিয়ে পড়লো সে গাড়ি নিয়ে অফিসের দিকে। রিয়ার ভিউ মিরররের দিকে এক ঝলক তাকিয়ে ভাবলো, ইশ, হেয়ার স্পা আর ফেসিয়ালটা করতে হবে তো, পার্লারে বুকিং নিতে হবে এর মধ্যেই !” 

অন্যমনস্ক ভাবে হাত বাড়িয়ে রেডিওটা অন করলো সে, সকালে এই সময়টুকুই  একটু রেডিও শোনার অভ্যেস তার। একজন রেডিও জকি আবোলতাবোল বকে চলেছে, উফ্, এরা গান কম শোনায়, বকবক বেশি করে, বিরক্ত ভাবে ভাবলো তিস্তা।

“এবার পুজো কেমন ভাবে কাটাবেন আপনারা? কি আশা করছেন? নতুন কি করতে চান? চটপট ফোন করে জানান আমাদের।” বলে চলছিলো একজন  RJ, “এই তো আমাদের প্রথম বন্ধুটির ফোন এসে গেছে, চলুন দেখি  আমাদের এই কলার বন্ধুটি পুজো কিভাবে কাটাতে চান?”

একে অফিস টাইম, তার উপর বৃষ্টি, রাস্তার উপর মনোযোগ করে গাড়ি চালাতে চালাতে অন্যমনস্ক ভাবে শুনছিলো তিস্তা রেডিওটা। 

“হ্যালো, আমার নাম তিস্তা”  কচি শিশুকণ্ঠে নিজের নাম শুনে হটাৎ চমকে উঠলো তিস্তা। রেডিওর আওয়াজটা আরেকটু বাড়িয়ে দিলো সে। 

RJ তখন বলছিলো “বলো তিস্তা, কি ভাবে কাটাতে তোমার পুজো?”

“নতুন জামা পরে। ” চট করে এলো শিশু কণ্ঠের উত্তর।

RJ হেসে উঠলো, “সে তো সবাই পরে তিস্তা! তা তোমার কটা নতুন জামা হয়েছে?”

“এখনো একটাও হয়নি ! তবে আন্টি বলেছে কাকুদের বাড়ি থেকে যে জামাগুলো এসেছে, ওগুলো নতুন করে দেবে আমাদের।”

কিছুটা হতভম্ব RJ বলে উঠলো, “নতুন করে দেবে মানে? তুমি কি আন্টির সাথে থাকো?”

সলজ্জ কচি কণ্ঠের উত্তর এলো, “হ্যাঁ “!

-“তোমার আন্টির সাথে কথা বলতে পারি?”

ফোনে এলেন এক বয়স্ক মহিলা, “হ্যালো?”

– “আচ্ছা দিদি, এই কাকুদের জামা নতুন করে দেয়ার ব্যাপারটা কি? তিস্তা বললো আপনি ওর আন্টি, একটু বুঝিয়ে বলতে পারবেন?”

– “আসলে দিদি, এটি একটি অনাথাশ্রম। আমি এখানে কাজ করি। পুজোয় এতগুলো বাচ্চাকে তো জামা দেয়া সম্ভব হয়না, তাই ডোনেশনে যে পুরোনো জামা আসে, ওটাই আমরা সেলাই করে ধুয়ে দেই ওদের। নতুন জামা তো পুজোতে পায়না, তাই মনের ইচ্ছেটা বোধহয় আপনাদের ফোনে জানিয়েছে ।”

RJর মতো কণ্ঠরুদ্ধ হয়ে এলো তিস্তারও। একই শহরে একই চাহিদা নিয়ে একই পুজো দেখবে দুটি একই নামের মেয়ে। অথচ কত পার্থক্য দুজনের জগতে! নিজের ছোটবেলার কথা মনে পড়লো তার। ছোট্ট তিস্তার পুজো মানেই তো ছিল কটা নতুন জামা হলো! আর এই ছোট্ট তিস্তা কিনা আজ পর্যন্ত পুজোতে একটা নতুন জামা পায়নি? স্তম্ভিত রেডিও জকিও নিজেকে সামলানোর জন্যে একটি গান চালিয়ে আশ্রয় নিলো তার আড়ালে। কিন্তু একটা ভাবনা সারাদিন ব্যথিত করতে থাকলো তিস্তাকে, “কেন এই বৈষম্য, কেন এই বিভেদ?”! মনের ভিতর থেকে যেন একটাই উত্তর সে পেলো বারংবার “কারণ এই বিভেদ দূর করার কোনো চেষ্টাই আমরা করিনি”!

বিকেলে কিছুটা আনমনা হয়েই  শপিং মলের বাইরে দেখা করলো সে আবিরের সাথে। মায়ের কথা মত একটা ভালো জামাও  কিনে দিলো সে আবিরকে।

-“তুমি কিছু নিলে না? চলো, এবার তোমার শপিংটা করি। ” আবির বলে উঠলো তিস্তাকে।

-“আমার ইচ্ছে করছে না!”

-“সেকি, কোনো? আমি কিছু শুনবনা, আমি আমার তিস্তা একটা ভালো শাড়ি দিতে চাই ! ওটা পরে আমার সাথে ঠাকুর দেখতে বেরোবেন, বুঝলেন ম্যাডাম?” হাসতে হাসতে বললো আবির।

 তিস্তাকে আনমনা দেখে অবাক হয়ে সে আবার বললো “তোমার কি হয়েছে বলতো? শপিংএ মন নেই তোমার, এমন তো আগে কখনো দেখিনি?”

-“আমাকে সত্যি কিছু গিফ্ট করতে চাও? তাহলে চল আমার সাথে এক জায়গায়!”

আবির আর কথা না বাড়িয়ে বেরিয়ে পড়লো তিস্তার সাথে। উত্তর কলকাতার একটি জীর্ণ বাড়ির বাইরে এসে থামলো তারা। বাইরে বোর্ডে বড় করে লেখা একটি অনাথাশ্রমের নাম। ভিতরে গিয়ে মেট্রনকে বললো তিস্তা, “আমি তিস্তার সাথে দেখা করতে চাই!”

মিনিট দুয়েক পর একটি রোগ, বছর পাঁচেকের শিশু তাদের সামনে এসে দাঁড়ালো। 

“তুমি জানো, আমার নামও তিস্তা?” বিস্মিত শিশুটিকে জানালো তিস্তা। আবিরের দিকে ফিরে বললো “কিগো, তুমি যে বললে তিস্তাকে গিফ্ট দিতে চাও?”

হেসে ফেললো আবিরও। 

অনাথাশ্রমটিতে এমন জনা কুড়ি বাচ্চা থাকত, তাদের সাথে গল্প করে, হৈচৈ করে দিব্বি কাটলো তাদের সন্ধেটা। পরের দিন দুজনের পুজোর পুরো বাজেট মিলিয়ে কুড়িটি বাচ্চার জন্যে জামা কিনতে বেরোলো আবির আর তিস্তা। নতুন জামা পেয়ে উৎসাহিত ছোট্ট তিস্তা দৌড়ে এসে বললো বলে উঠলো, “দিদি, তুমি আর দাদা আমাদের পাড়ার পুজোয় এস কিন্তু। খিচুড়ি ভোগ খেয়ে যাবে। “

সেবছর অষ্টমীর দিনে অঞ্জলি দিলো তারা কুড়িটি নতুন পোশাকে সজ্জিত খুদের সাথে। কচি হাতে যখন শাল পাতার বাটিতে ভোগের খিচুড়ির এনে দিলো তারা, তিস্তার খেয়ে মনে হলো, এই ভোগের স্বাদ যেন আলাদা। 

চারটে পুচকে ছেলের সাথে মার্বেল পাথর নিয়ে ব্যস্ত আবিরের দিকে তাকিয়ে ভাবলো তিস্তা, সত্যি এবারের পুজোটা হলো অন্যবারের থেকে একদম আলাদা। ছোট্ট তিস্তার ফ্রকের বেল্টটা বেঁধে দিতে দিতে মুচকি হাসলো সে, এবছর দুই তিস্তারই পুজো যে কাটলো ঠিক তাদের মনের মতন করে !

(Copyright protected; Image source:Internet)

রেডিওতে শোনা একটি ফোন কোলের অবলম্বনে লেখা এই ছোট গল্প।

Posted in Bengali, short shory

কথা ও সুর

চিরন্তনা সেনগুপ্ত সরকার

“সাদা কালো এই জগতের বইয়ে শুষ্ক লাল গোলাপ….

                   বিস্মৃত কিছু স্মৃতির ওজনে জীর্ণ হয়েছে আজ !

মেঘেরাও আজ ক্লান্ত যে বড়, সিক্ত নয়নে চাই……

                                   একলা আমি ফেলে আসা দিনের মরীচিকার পিছে ধাঁই….”

কবিতাটি পরে গায়ে কাঁটা দিয়ে উঠলো উত্তরার। কার জন্যে লেখা এই কবিতাটি? 

রাতের খাওয়াদাওয়ার পরে ল্যাপটপ নিয়ে টুকটাক কাজ করাটা উত্তরার রোজকার অভ্যাস। এই সময়টুকু তার একান্ত আপন, যাকে আজকাল  ইংরেজিতে বলে “Me-Time” । আজও ল্যাপটপ খুলে অভ্যাসবশত সে প্রথম পৌঁছে গেছে তার সবচেয়ে প্রিয় ব্লগটিতে যার নাম “কথা ও সুর”। গান-পাগল উত্তরার খুব পছন্দের ওয়েবসাইট এটি। প্রতি সপ্তাহে নতুন নতুন কবিতার আশায় সে অপেক্ষা করে থাকে সারা সপ্তাহ । এবং কবিতাগুলোতে সুর দিয়ে তাদের গানে রূপান্তরিত করাটা যেন এখন নেশায় দাঁড়িয়ে গেছে তার। তার মত অনুরাগী অবশ্য অনেকেই আছেন দেশ বিদেশে যারা তাদের সুরের নোটেশন কবিকে পাঠান। তারপর সেই কবির কথা ও পাঠকদের সুরের ছন্দ মিলেমিশে সৃষ্টি হয় মন-মাতানো কত গান ! সেগুলি গুন্গুন্ করেই উত্তরার কেটে যায় সারা সপ্তাহ । 

কিন্তু আজকের কবিতাটির অন্তরালে যেন এক প্রচ্ছন্ন ব্যাথা তার নিজের পুরোনো কিছু  স্মৃতিকে জাগিয়ে তুললো। গিটার নিয়ে উত্তরা গুন্গুন্ করে গাইতে লাগলো এক নতুন অজানা  সুর। আজ পর্যন্ত কোনদিন সাহস করে তার নোটেশন সে পাঠায়নি কবিকে। যেন আড়ালে থেকে উপভোগ করেছে এই সংগীত সৃষ্টির খেলাকে। ঠিক যেমন করে অনুরাগীদের হাজার প্রচেষ্টা ও প্রশ্নকে উপেক্ষা করেও কবি নিজেকে আড়ালে রেখেছেন, কোনোদিন জানতে দেন নি তার আসল নাম বা পরিচয়। কিন্তু আজকের কবিতাটি একটু  আলাদা। সেই জন্যেই হয়তো কিছুটা আবেগপ্রবণ হয়ে নিজের নোটেশন পোস্ট করে দিলো উত্তরা জীবনে প্রথম। 

এত সুরের ভিড়ে হয়তো কবি তার পোস্টটি খেয়ালই করবেন না, মনে মনে আশা করলো উত্তরা। ল্যাপটপ ছেড়ে উঠে গিয়ে জীর্ণ, পুরোনো একটি খাতা বের করলো বইয়ের সেল্ফ থেকে – তার পুরোনো গানের খাতা। পাতা উল্টাতে মাটিতে এসে পড়লো একটি চিঠি, মুক্তোর মতো হাতের লেখায় তাতে লিপিবদ্ধ অভির প্রথম কবিতা, যেটা একদিন কলেজের ক্লাসনোটের ভাজে তার হাতে এসে পৌঁছেছিল । 

                                     “গিটার পেয়েছে নতুনের ছোঁয়া তোর সুরে সুর মিশে।….

                                                        মন যে মেতেছে নতুন ছন্দে; তোর চোখে চোখ রেখে….

                                       এ কোন অজানা দেশে আমি আজ; সবই অচেনা লাগে…..

                                                         হারায়ে না যেন রঙ্গীন স্বপ্ন, অজানা ভয় যে জাগে ! “

হঠাৎ কম্পিউটারের একটা মেকানিক্যাল শব্দে চমকে ওঠলো উত্তরা । ছুটে গিয়ে দেখে কথা ও সুরের কবি স্বয়ং তাকে মেসেজ করেছেন;

“আজকে সকালে কবিতাটি পোস্ট করার পর থেকে অনেক সুরের নোটেশন পেয়েছি। কিন্তু ঠিক যে সুরটা খুজছিলাম সেটা পাচ্ছিলাম না। মনে হচ্ছিল কেউ যেন আমার মনোভাবটি ঠিক করে ধরতে পারছিলো না ! আপনার নোটেশনে এবং সুরে যেন সেই আবেগ, সেই অনুভূতিগুলি খুঁজে পেলাম। ধন্যবাদ। আপনার নামটি লেখেন নি মেসেজে। প্লিজ আপনার পরিচয়টি দেবেন আপনার পোস্টটিতে। আরো কিছু ভালো সুরের অপেক্ষায় রইলাম। “

মেসেজটি পেয়ে অভিমানে চোখে জল চলে এলো উত্তরার । শব্দের আড়ালে, কম্পিউটারের নেপথ্যে বসে থাকা প্রিয় মানুষটিকে প্রথম কবিতা থেকেই ঠিক চিনতে পেরেছিলো উত্তরা, কিন্তু সুর ও ছন্দের আড়ালে, দেড় হাজার অনুরাগীর ভিড়ে সে নিজে যে আজ হারিয়ে গিয়েছে। যে কবিতাগুলোর উপর একদিন  ছিল তার একচ্ছত্র অধিকার, আজ যেন সেই কবিতাগুলো তার একার নয়, সবার! যে মানুষটি এককালে তার নিস্তব্ধতা কে চিনে ফেলতো পারতো, আজ সেই পারলোনা তার সুরটিকে চিনে নিতে!

কিছু উত্তর দিতে মন চাইলো না উত্তরার। ল্যাপটপ অফ করে ঘড়ি দেখলো। রাত তখন প্রায়  ১টা। 

লাইট অফ করে বেডরুমে ঢুকলো সে। ঘুমে অচৈতন্য স্বামীটির দিকে আবছা চোখে চেয়ে একটা দীর্ঘশ্বাস ফেললো উত্তরা, “কিছু পরিচয়ের হয়তো কথা ও সুরের আড়ালে লুকিয়ে থাকাটাই ভালো”!

(Copyright protected)                        

Posted in Microstories

“তোর মা প্রচন্ড দুরন্ত ছিল জানিস? একদম পড়াশোনায় মন ছিল না !” জয়তীর মা বলছিল তার আট বছরের নাতিকে। 

“সায়ন আমাদের খুব শান্ত ছেলে, কোনো ঝামেলা নেই, তাই না মা?”  আদর করে বোনপোর মাথায় হাত  রাখলো জয়তীর বোন অনু। 

মোজায় চোরকাঁটা, ব্যান্ড-এইড লাগানো হাটু আর পড়ার বইয়ের তলায় লুকোনো গল্পের বইয়ের স্বাদ থেকে বঞ্চিত,  ট্যাবলেটে মুখ গুঁজে বসে থাকা ছেলের দিকে তাকিয়ে একটা দীর্ঘশ্বাস ফেললো জয়তী। 

Posted in Bengali, short shory

হটাৎ দেখা

 

চিরন্তনা সেনগুপ্ত সরকার

নভেম্বর ২০১১

সেন্ট টমাস চার্চের গলিতে গাড়িটি দাঁড় করিয়ে রিয়ার ভিউ মিররে একবার চুলটা ঠিক করে নিল গৌরব। সন্তুষ্ট হয়ে গাড়িটি লক করে হাটা লাগালো পার্ক স্ট্রীটের দিকে। আজ অবশ্য তার প্রতি শনিবারের মতো গন্তব্য “Someplace Else” নয়, আজ গন্তব্য “Peter Cat” । হাতঘড়িটা একবার দেখে নিল সে, বারোটায় আসার কথা নীলাঞ্জনার। না, তাকে অবশ্য সে চেনেনা, কিন্তু ছবি দেখেছে। মায়ের আবদারে কিছুটা বাধ্য হয়েই আসতে হলো তাকে এই Blind Date এ । এই “Arranged Marriage” বস্তুটিতে একেবারেই বিশ্বাসী নয় সে। এভাবে একদিন চিনে কোনো মানুষকে বিয়ে করে নেয়া যায় নাকি? সবচেয়ে বড় কথা এসবের জন্যে সময়টা তার কোথায়? এত বড় কোম্পানিটাকে একা হাতে চালায় সে। বাবা তো রিটায়ারমেন্ট নিয়ে বাগান করায় মনোনিবেশ করেছেন। মা ও নিজের সোশ্যাল ওয়ার্ক নিয়ে ব্যস্ত। এই মুহূর্তে এত বড় দায়িত্ব নেওয়াটা তার ক্যারিয়ার এবং ব্যবসা, দুটোর জন্যেই যে ক্ষতিকারক, এটা সে কাকে বোঝাবে!

বিরক্ত ভাবে কোটটা একঝটকায়ে ঠিক করে নিল সে। মেয়েদের লেট্ করার অভ্যাস থাকে, সে কিছুক্ষন অপেক্ষা করে কেটে পড়বে, এমনটাই মনে মনে স্থির করলো। কিন্তু কিছুটা এগোতেই রেস্তোরাঁর সামনে একটা চেনা মুখ দেখতে পেল। ছবির থেকে খালি চোখে বেশি সুন্দর দেখতে মেয়েটিকে। মুখশ্রীটা বেশ মিষ্টি যদিও রংটা একটু চাপা। পরনে হালকা তুঁতে রঙের একটা খাদির কুর্তি, ankle -length ডেনিমের লেগিংস, আর গলায় একটা সাদা স্কার্ফ। তাকে চিনতে পেরে এগিয়ে এসে মেয়েটি সানগ্লাসটা খুলে হাত বাড়ালো, “হাই , আমি নীলাঞ্জনা। “

“হ্যালো” বলে হাত মেলালো গৌরব। চোখে হালকা কাজল ছাড়া আর কোনো মেক-আপের ছিটেফোঁটা নেই। “ডেটে আসার এ কেমন সাজ?” মনে মনে ভাবলো গৌরব। তার দুনিয়ার মেয়েরা একেবারেই আলাদা সাজপোশাকে বিশ্বাসী। হাই হীল, ডিসাইনার জামা আর চড়া মেক-আপ দেখে অভ্যস্ত গৌরব প্রথমেই যেন কিছুটা থমকে গেলো নীলাঞ্জনাকে দেখে।

“আমি টেবিল বুক করে রেখেছিলাম। চলুন ভেতরে বসা যাক।” বলে উঠলো নীলাঞ্জনা। “আর হ্যাঁ ,  আমাকে নীল বলে ডাকতে পারেন, সবাই তাই বলে। “

টেবিল বুকটা তো তার করার কথা, সে বেমালুম ভুলেই গেছে। ছেলে হিসাবে ডেটের সমস্ত দায়িত্ব তারই হওয়া উচিত – এমনটাই সে দেখে এসেছে সারাজীবন! কিছুটা হতবম্ব হয়ে নীলের পিছু নিল সে। 

“মিস নীলাঞ্জনা বসু, আমার একটা বুকিং ছিল” নীল ততক্ষন পৌঁছে গাছে রেস্তোরাঁর দোরগোড়ায়। 

“হাঁ ম্যাম আসুন, অনেকদিন পর এলেন।” হাসি মুখে তাকে অভর্থনা জানালো স্বয়ং ম্যানেজার। 

গৌরবের chivalryতে ততক্ষন বাঁধতে শুরু করেছে। এখন ফিরে গেলে খারাপ দেখাবে। তাই বাধ্য হয়ে লাঞ্চ অব্ধি মেয়েটাকে সহ্য করতেই হবে তাকে। একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে টেবিলে গিয়ে বসলো সে। 

– “আপনার মা বলছিলেন আপনার মিউজিকের খুব নেশা।  আপনার কি নিজের ব্যান্ড আছে?” গৌরব কিছু বলে ওঠার আগেই প্রশ্ন করলো নীল। 

– “ছিল ! ওই টুকটাক গান বাজনা করতাম। এখন কাজের থেকে সময় পাইনা খুব একটা।”

– “আমার তো মনে হয় প্যাশনটাই  প্রফেশন হওয়া উচিত। আমি আপনাদের কলেজ ব্যান্ড এর বেশ কটা ভিডিও দেখলাম Youtube এ । You had been really good as a lead singer.”

কিছুটা বিরক্ত অনুভব করলো গৌরব। অহেতুক জ্ঞান শুনতে তার ভালো লাগেনা। কথা ঘোরাতে বললো “তা আপনি কি করেন ঠিক জানিনা আমি”।

– “I am a photographer. আপাতত Freelance করি। ইচ্ছে আছে wildlife photography করার।”

– “তাই ?” বলে হেসে উঠলো গৌরব।

– “হাসলেন যে?” অবাক হলো নীল। 

– “না, আসলে শহর ছেড়ে জঙ্গলের প্রতি কেন কারো টান থাকবে, আমি ঠিক বুঝি না।” 

ওয়েটার আসাতে কথায় বাধা পড়লো দুজনের। 

– “মিউসিক ছাড়া ফ্রি টাইম পেলে আর কি করেন আপনি?” নীল জিজ্ঞাসা করলো অর্ডার দেয়ার পর। 

– “লং ড্রাইভ, পার্টি, নাহলে বন্ধুদের সাথে আড্ডা বা মুভি। এই। যদিও সময় আমি খুব একটা পাইনা। তবে প্রত্যেক শনিবার বন্ধুরা Someplace Else এ আসি আমরা। আপনি ?”

– “একেবারেই আলাদা” হেসে উঠলো নীল, “গল্পের বই পড়ি নাহলে রান্না করি। আমার কুকিং করতে খুব ভালো লাগে। দেশ বিদেশের রান্না। একটা রান্নার ব্লগও আছে আমার। ফটোগ্রাফির নেশাটা বাদ দিলে আদতে আমি কিন্তু খুব ঘরকুনো।”

গৌরব বুঝলো কোনো মিলই নেই তাদের মধ্যে, তাও জানতে চাইলো,  “গান শোনেননা ? কিরকম গান ভালোবাসেন ?”

– “Mostly রবীন্দ্রসংগীত , পুরোনো দিনের গান, ক্লাসিক্স , এসবই ভালো লাগে। আপনি বই পড়েন না?”

– “না, একেবারেই না। অনেক সময় আর ধৈর্য লাগে। আমার তা নেই। “

খেতে খেতে প্রায়  আধঘন্টা চললো কিছু না কিছু মিল খুঁজে বের করার ব্যর্থ প্রয়াস। আপব্রিনগিং, ফ্যামিলি, আশা – প্রত্যাশা, পছন্দ-অপছন্দ, সবই যেন আলাদা তাদের! 

বাইরে এসে কিছুটা ক্ষুন্ন হয়েই গৌরব বললো, “এই বিল ৫০-৫০ করার ব্যাপারটা আমার জীবনে প্রথম।”

তার রাগের কারণ আন্দাজ করতে  না পেরে খুব সহজ ভাবেই বলে উঠলো নীল “তাই? আমরা বন্ধুরা তো সবসময় করি। আচ্ছা আমি অক্সফোর্ডে যাবো, আপনি আসবেন ?”

“No  thanks, আপনি যান।” এড়িয়ে গেল গৌরব।

হাত বাড়িয়ে নীল বললো “আজ তাহলে আসি। খুব ভালো লাগলো কথা বলে। “

“বাই” সংক্ষেপে উত্তর দিলো গৌরব। বানানো কথা সে বলতে পারেনা। যেটুকু মন থেকে বের হয় তাই বলে । রাস্তা পার করে নীল রওনা দিলো তার পছন্দের বুকস্টোরের উদেশ্যে। ছাড়া পেয়ে গৌরব ও ছুটলো তার গাড়ির দিকে। এভাবে তার  সময় নষ্ট করানোর জন্যে আজ রাতে মায়ের সাথে কথা বলতেই হবে তাকে, মনে মনে স্থির করলো সে। গাড়ির ড্যাশবোর্ডের উপর পরে থাকা নীলের বায়ো-ডাটা আর ছবিটা চোখে পড়লো তার, হাতে তুলে আরেকবার দেখলো ছবিটা। Wildlife ফটোগ্রাফার হবে, আজব মেয়ে বটে! হেসে ফেললো সে। ছবিটা যত্ন সহকারে খামে ভরে রাখলো গৌরব, আজ রাতে মা কে ফেরত দিয়ে দিতে হবে যে !

*****

ডিসেম্বর ২০১৬

ইন্দিরা গান্ধী ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্ট। লাউঞ্জের কোনায় কানে হেডফোনটা গুঁজে বসলো গৌরব। বিজনেস মিটিং থেকে সোজা চলে এসেছে সে এয়ারপোর্টে। ওদিকে কুয়াশার জন্যে প্লেন লেট্। এখনো অনেকটা সময়  কাটাতে হবে তাকে এয়ারপোর্টে। গান শুনতে শুনতে এদিক ওদিক চেয়ে দেখছে সে। অচেনা মানুষের সমুদ্র। সবাই যে যার গন্তব্যে পৌঁছনোর অপেক্ষায়। হটাৎ সেই অচেনা  ভিড়ে একটা চেনা মুখ চোখে পড়লো তার। আরে, কি যেন নাম ছিল মেয়েটার? হ্যাঁ, নীলাঞ্জনা। 

নীল রঙের জিন্স , তার উপর গোলাপি টপ, পায়ে স্নিকার, ও পাশে এক বিশাল ব্যাকপ্যাক নিয়ে অল্প দূরে একটা ফটোগ্রাফির বইয়ে নিমগ্ন নীল। গৌরব ঠিক তার সামনে এসে দাঁড়ালো।

-“হাই , চিনতে পারছেন?”

মুখ তুলে তাকালো নীল। “আরে, গৌরববাবু? বসুন বসুন। ভাবিনি আপনার সাথে আবার কোনোদিন দেখা হবে। “

পাঁচ বছর আগের সাক্ষাৎটা মনে পরে গেল গৌরবের। পাশের চেয়ারে বসে বললো “কোথায় যাচ্ছেন?”

-“জব্বলপুর। ওখান থেকে বান্ধবগড়। দিল্লীতে এসেছিলাম একটা ফটোগ্রাফির কোর্স করতে। ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের একটি প্রজেক্টে যাচ্ছি। আপনি ?”

-“কলকাতা ফিরছি। একটা মিটিং এর জন্যে এসেছিলাম। আপনার বাড়িতে সবাই ভালো তো?”

টুকটাক কথা এগোতে লাগলো এভাবে। হাতঘড়িটা দেখে গৌরব বললো “আপনারও তো ফ্লাইট লেট্। চলুন না একটু কফি খাওয়া যাক। ” নীলকে ইতস্তত করতে দেখে সে হেসে বললো “৫০-৫০ হবে, আমার মনে আছে। “

হেসে উঠলো নীলও। ক্যাফেটেরিয়ায় পৌঁছে অর্ডার করে এক কোনায় বসলো তারা।

“তারপর, বিয়ে করেছেন?” সারাসরি জিজ্ঞাসা করলো গৌরব।

“আমার মতো বন্যপ্রাণীকে বিয়ে করার লোক খুঁজে পাওয়া দায়ে। এই দেখুন না, আপনিও তো পালিয়ে গিয়েছিলেন।” হেসে উত্তর দিলো সে। 

গৌরব যখন কি উত্তর দেবে ভেবে পাচ্ছে না, তখন পাল্টা প্রশ্ন করলো নীল , “আপনি করেননি বিয়ে?”

-“করেছিলাম। তিনবছর আগে। এক বছর আগে ডিভোর্স হয়ে গেছে । “

-“ওহ, I am sorry !”

কথা হারানোর পালা এবার নীলের। কিছুক্ষন দুজনই নিঃশব্দে বসে রইলো। কিছুক্ষন পরে খুব ভয় ভয় প্রশ্ন করলো নীল “কেন জানতে পারি, if you don’t mind !”

-“নিজেও ঠিক জানিনা আমি” একটা দীর্ঘশ্বাস ফেললো গৌরব। “আমার বাবার বিজনেস পার্টনারের মেয়ে। সব দিক থেকেই আমার জন্যে মানানসই ছিল।  আমিও তাই ভেবেছিলাম। কিন্তু সম্পর্কটাতে কি যেন একটা মিসিং ছিল, নিজেও ঠিক জানিনা। অনেক চেষ্টা করেছিলাম সম্পর্কটাকে বাঁচাতে।  আসলে কি জানেন,শুধু মিল থাকলেই যে দুটো মানুষ পুরোপুরি compatible হবে, তার হয়তো কোনো মানে নেই। মাঝে মাঝে একটা এক্সট্রা কিছুর দরকার পরে…..যেমন…..কি যে বলি…..কি ভাবে যে বোঝাই আপনাকে…..”

-“যেমন একটু এডভেঞ্চার।” বলে উঠলো নীল। 

অবাক হয়ে গেল  গৌরব। “হ্যাঁ, হয়তো একটু এডভেঞ্চারই “! 

-“এমনি এমনি তো বলে না Opposites attract । একটু ক্লিশে শোনালো জানি। কিন্তু এটাই সত্যি।” বলে উঠলো নীল। 

-“আচ্ছা, একটা কথা জানতে ইচ্ছে করে” জিজ্ঞাসা করলো গৌরব। “আপনি ঐদিন বলেছিলেন যে আপনার আমার সাথে কথা বলে ভালো লেগেছিলো, সেটা কি সত্যি না নিছকই ভদ্রতা ছিল?”

-“মিথ্যা বলতে আমি খুব একটা পারিনা, গৌরববাবু। আপনার আর আমার জগৎটা একদমই আলাদা। সেইজন্যেই অনেক কিছু জানার এবং শেখার ছিল আমাদের পরস্পরের থেকে। হয়তো বিজনেসের উপর নতুন ঝোক চলে আসতো আমার, বা কুকিংএর নেশা লেগে যেত আপনার। বা হয়তো আপনার ব্যান্ডের গানের একজন নতুন শ্রোতা পেয়ে যেতেন আপনি, আর আমি আপনার মধ্যে আমার ফটোগ্রাফির একজন ক্রিটিক পেতাম ! আপনি  অবশ্য সেই সুযোগটা আর দিলেন কই। “

কত সরলভাবে এই মেয়েটা এই গুরুগম্ভীর কথাগুলো ব্যক্ত করে দিলো। সত্যি হয়তো নতুন করে জীবনকে দেখার সুযোগ পেতো গৌরব নীলের সাথে থেকে। চিরাচরিত গতানুগতিক জীবনের হয়তো একটা আলাদা স্বাদ পেতো। হয়তো এই কারনেই মায়ের এত পছন্দ হয়েছিল নীলকে। মাথা নিচু করে ভাবতে লাগলো গৌরব।

কফিটা শেষ করে উঠে দাঁড়ালো নীল। 

-“গৌরববাবু, এখনো সময় আছে। জব্বলপুরের ফ্লাইট কিন্তু এখনো ভর্তি হয়নি। একটু এক্সপ্লোর করে দেখবেন নাকি আমার জগৎটাকে?”

চিরকাল প্ল্যানমাফিক কাজ করা গৌরবের মাথায় হঠাৎ যেন কি একটা পাগলামীর পোকা নড়ে উঠলো। অদূরে দাঁড়িয়ে থাকা ইন্ডিগোর ফ্লাইট আটটেনডেন্টের সাথে কথা বলতে দৌড়ালো সে। বেশ কিছু ফর্মালিটি শেষ করে পকেট থেকে ফোনটাকে বের করে ডায়াল করলো বাড়ির নম্বর। 

সে যে আজ কলকাতা পৌঁছাবে না, তা তো জানিয়ে দিতে হবে তাদের! 

(Picture source : Internet)